fbpx

নেতা নেই, চিন্তায় হাইকমান্ড; শাসন হারিয়ে টুইটারই ভরসা কংগ্রেসের

একসময়ের দেশের সবচেয়ে বড় পার্টি ছিল কংগ্রেস। কিন্তু এমন কি হল একেবারে শেষের খাতায় নাম লেখাচ্ছে কংগ্রেস। ৫ রাজ্যের বিধানসভা ভোটের ( Assembly Election 2022) ফলাফল প্রকাশ হয়েছে। একটি রাজ্যেও ক্ষমতায় তো আসতেই পারেনি, বরং পাঞ্জাবের শাসনও হারিয়েছে কংগ্রেস। শুধু তাইই নয়, পাঞ্জাবের বর্তমান কার্যকরী মুখ্যমন্ত্রী চরঞ্জিত সিং চান্নি পাঞ্জাবের দুটি বিধানসভা আসন থেকেই হেরে যান। এখানেও শেষ নয় মনিপুর, উত্তরাখণ্ড, পাঞ্জাব সব জায়গাতেই কংগ্রেসের মুখ্যমন্ত্রী পদপ্রার্থী হেরেছে। কিন্তু রাহুল গান্ধী টুইট করেছেন ‘আমরা এখনও শিখছি’। 

প্রথমেই আসি পাঞ্জাবের কথায় ( Assembly Election 2022) । কৃষক আন্দোলনের মত এত বড় সত্বাবিরোধী আন্দোলনের পরও রাজ্য সরকারের হার। এর কারণ আর কিছুই নয়, অন্তঃকলহ। সিধু দুষছেন অমরেন্দ্রকে, আমরেন্দ্র হাত বাড়িয়ে দিচ্ছেন বিজেপির দিকে, চান্নি এসে বলছেন অমরেন্দ্র কোন কাজ করেনি। আর তাঁর মাঝেই জনগণ পিষছেন নেশা, ফসলের সঠিক দাম না পেয়ে।  পাঞ্জাবে ২০১৭ সালে ৭৭টি আসনে জিতে ক্ষমতায় এসেছিল কংগ্রেস। কিন্তু পাঁচ বছরের মধ্যেই পালাবদল হতে চলেছে। ২০২২-এ ৮০টিরও বেশি আসনে জিতে পাঞ্জাবে ক্ষমতা দখল করতে চলেছে আম আদমি পার্টি।

নরেন্দ্র উবাচ, ২০২৪ লোকসভায় নিশ্চিত জয় পেতে প্রতিশ্রুতির বন্যা মোদিরউত্তরপ্রদেশে কংগ্রেসের দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নিয়েছিলেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী ( Assembly Election 2022) । কিন্তু উত্তরপ্রদেশে দলের বৈতরণী পার করতে গিয়ে কংগ্রেসকে ডুবিয়ে ছাড়লেন প্রিয়াঙ্কা। রাহুল গান্ধীর নেতৃত্বে ভোটে লড়ে ২০১৭ সালে সাতটি আসনে জয় পেয়েছিল কংগ্রেস। এবার প্রিয়াঙ্কার নেতৃত্বে লড়ে আরও কমজোরি হল তারা। একেবারে তলানিতে নেমে গেল কংগ্রেস। এবার দেখার ‘লাডকি হু, লার শক্তি হু’ শুধু ২০২২ এর বিধানসভা নির্বাচনের জন্যই ছিল নাকি আরও বেশী কিছু। 

আরও এক মজার গল্প উত্তরাখণ্ডের ( Assembly Election 2022) । উত্তরাখণ্ডের কংগ্রেসের মূল নেতা হরিশ রাওয়াতকে ভোটের আগে পাঞ্জাবের প্রভারি করে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। নিজের তাজ্যের হাল না ধরে রাওয়াত যখন পাঞ্জাবের ধন্ধ ঠিক করছিলেন তখনই উত্তরাখণ্ড বেড়িয়ে যায় কংগ্রেসের হাত থেকে। শোচনীয় হারের সম্মুখীন হতে চলেছে প্রবীণ কংগ্রেস নেতা তথা প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী হরিশ সিং রাওয়াত।

আরও পড়ুন- পাঞ্জাবের জয়ের পরের দিন বাংলায় পা আম আদমির, মালদায় মিলল একাধিক পোস্টার

গোয়ায় ( Assembly Election 2022) বিজেপি পেয়েছে ৩৩.৩১ শতাংশ ভোট। আর ২৩.৪১ শতাংশ ভোট কংগ্রেসের ঝুলিতে। শতাংশের হারে স্পষ্ট বিরোধী শিবিরের ভোট ভাগ না হলে বিজেপির পক্ষে গোয়ায় জেতা কঠিন ছিল। যদিও ভোটের ফল পাটিগণিতের সহজপাঠে চলে না। রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, আপ বা তৃণমূল লড়াইয়ে না থাকলে কে বলতে পারে বিরোধী ভোটের ওই অংশ যেত কংগ্রেসের ঝুলিতে। গণনার আগে সকল প্রত্যাশীকে নিয়ে যাওয়া হয় এক হোটেলে। কিন্তু তাও শেষ রক্ষ্যা হল না।  

৬০ আসনের মণিপুর বিধানসভা ভোটে ( Assembly Election 2022) বিজেপির দখলে এল ৩২টি আসন। জেডিইউ ৬টি, কংগ্রেস ৫টি, এনপিপি ৭টি, এনপিএফ ৫টি, কেপিএ ২টি ও নির্দল প্রার্থী ৩টি আসনে জিতেছে। কংগ্রেসের তরফে অবশ্য দাবি করা হয়েছে, ভোটে কুকি জঙ্গি সংগঠনগুলি খোলাখুলি বিজেপির হয়ে বুথ দখল, রিগিং, ভোট দেওয়ার কাজ চালিয়েছে। তাই কুকি এলাকাগুলিতে ভোট হয়েছে একতরফা। কিন্তু ৪২ থেকে ৫ এ নেমে আসার মানে যে জনগণের ক্ষোভ তা আর আলাদা করে বলার দরকার পরে না। 

Congressমোটের উপর কথা হল। হাইকমান্ডে বসে নেই কোন নেতা। রাহুলের পদত্যাগের পর ভাবা হয়েছিল এবার বোধ হয় গান্ধি মুক্ত কংগ্রেস হবে। কিন্তু সেই গুঁড়ে বালি। গোঁদের উপর বিষফোঁড়া হল প্রতিবাদী নেতারা, জি-২৩। কিন্তু আদেও তা কতটা কার্যকর তা কারো জানা নেই। এভাবেই চলতে থাকলে, কতটা ‘শেখা’ হবে তা বলা মুশকিল, কিন্তু কংগ্রেসকে যে আর কঙ্গগ্রাটস (congrats) করা যাবে না, তা একেবারে পরিষ্কার। 

আরও পড়ুন- ‘কাভি খুশি কাভি গাম’ এবার হলিউডে, ব্রিজারটোনের দ্বিতীয় সিজনে বাজবে বলিউড রাগ

     

 

google-news-icon

লেটেস্ট খবর