fbpx

Guddi: ঝড়-বৃষ্টির রাতে বিপদে অনুজ! লেডিস হোস্টেলে আশ্রয় দিয়ে বদনামের ভাগী গুড্ডি, ক্ষুব্ধ দর্শক

গুড্ডিকে ভুলে শিরিনের গলায় মালা দিয়েছিল অনুজ। কিছুটা গড়রাজি হয়েই বিয়ের পিঁড়িতে বসেছিল সে। তারপর বদলে গেছে সংসারের চালচিত্র। এখনও গুড্ডিতেই মন পড়ে আছে অনুজের। সকলের সামনে ঘৃণা উগড়ে দিলেও, হাজার অপমান করলেও আড়ালে আজও গুড্ডিকেই ভালোবাসার কথা জানায় সে। কথায় কথায় সন্দেহ,অপমান সহ্য করতে হয় গুড্ডিকে।এদিকে প্রিয় গুড্ডির এই অপমান সহ্য করতে না পেরে প্রিয় জেঠুমনি অর্থাৎ বাড়ির বড়ো কর্তা হঠাৎই অসুস্থ হয়ে হসপিটালাইজ হন। আর সেখানে গুড্ডি,অনুজ, শিরিন সহ বাকি সকলেই হাজির হয়। বাকি সকলে সময় মতো বাড়ি ফিরে গেলেও হাসপাতালে অনেক দেরি করে ফেলেন গুড্ডি। রাতে কীভাবে হোস্টেলে ফিরবে এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গিয়ে হঠাৎই দেখা যায় অনুজ তখনও সেখানে উপস্থিত। অনুজ গুড্ডিকে পৌঁছে দিতে যায়।

গুড্ডিকে হোস্টেলে পৌঁছে দিতে অনুজ আসে। কিন্তু ঝড়, বৃষ্টিতে আটকে যায় সে। গুড্ডিও অনুজকে ঝড় বৃষ্টির রাতে বাইরে ছেড়ে দিতে পারে না। অনুরোধ করেন হোস্টেলে রাতে থেকে যেতে, এসময়ে দুজনের মধ্যে বহু কথোপকথন হয়। সেখানে গুড্ডিকে অনুজ জানায় যে শিরিণকে বিয়ে করে সে একদম ভালো নেই। গুড্ডি মুখে আত্মসম্মানের কথা বললেও মনে সে খুব দুর্বল। অনুজের সঙ্গে তাই সে আজও প্রাক্তন স্ত্রীয়ের মতো মান অভিমানের বাক্যালাপ চালিয়ে যান। এর মাঝে আসে শিরিনের ফোন। গুড্ডিকে জানতে চায় অনুজ তার সঙ্গে আছে কিনা। এর উত্তরে গুড্ডি সম্পূর্ণরূপে অস্বীকার করে যায়। এরপর যখন শিরিন ও তার ননদ দুজনেই এসে হাজির হন গুড্ডির হোস্টেলে। তখন প্রেমালাপ করতে হাতে নাতে ধরে ফেলেন গুড্ডি ও অনুজকে। চরম অপমানিত ও বিশ্বাসঘাতকতার অপবাদ পেতে হয় গুড্ডিকে।


এই দৃশ্য সামনে আসতেই ক্ষুব্ধ জলসার দর্শক। স্টার জলসার অন্যতম জনপ্রিয় ধারাবাহিক ‘গুড্ডি’। শ্যামৌপ্তিকে ভালোবাসেন দর্শক। এমনকি ছোটপর্দায় রণজয়ও বেশ সুনাম অর্জন করেছিলেন এই ধারাবাহিকের মাধ্যমে। তবে কাহিনীসূত্র ধরেই উল্টোস্রোত বইছে ধারাবাহিকে। অনেকে যেমন গুড্ডির আত্মসম্মানবোধ তার জেদকে পছন্দ করেছিলেন, বর্তমানে সেই চারিত্রিক দৃঢ়তা সেভাবে দেখা যাচ্ছে না। এমনটাই দাবি দর্শকদের। গুড্ডির অতিরিক্ত প্রাক্তনের প্রতি দুর্বলতা, দায়পরায়ণতা দেখে বিশেষ বিরক্ত দর্শক। এরজন্য গুড্ডিকেই দুষছেন তারা। এদিকে অনুজকে ‘চরিত্রহীন’ বলতে দ্বিধাহীন ধারাবাহিকের নিয়মিত অনুরাগীরা।

google-news-icon

লেটেস্ট খবর