fbpx

Behala: সকালের জলখাবার থেকে শেষ পর্বে মিষ্টি! বেহালার বুকেই রয়েছে দ্বিতীয় ডেকার্স লেন

ডেকার্স লেনের মতোই দক্ষিণ কলকাতার বেহালাও স্ট্রিট ফুডের স্বর্গদ্বার। যাবেন নাকি একবার?

কলকাতায় স্ট্রিট ফুডের নাম শুনলে সবার প্রথমে মাথায় আসে ডেকার্স লেনের ( Dacres Lane ) কথা। স্ট্রিট ফুডের স্বর্গ দ্বার হল এই ডেকার্স লেন। অফিস কর্মচারী হোক কিংবা কলেজ পড়ুয়া, সকলেরই সকাল-সন্ধ্যায় জলখাবার খাওয়ার প্রিয় স্থান এটি। কলকাতার বুকে রয়েছে প্রচুর ক্যাফে, কিন্তু তবুও ডেকার্স লেনের জনপ্রিয়তা একাংশও কমেনি। তাই সবাই কলকাতার স্ট্রিট ফুডের কথা শুনলেই এই স্থানের কথাই বলে থাকেন। কিন্তু জানেন কি? কলকাতার এই জনপ্রিয় ডেকার্স লেনের মতোই দক্ষিণেও রয়েছে স্ট্রিট ফুডের ভান্ডার। জনপ্রিয়তার নিরিখে তা ডেকার্স লেনের তুলনায় পিছিয়ে থাকলেও সুস্বাদু খাবারের অভাব নেই সেই স্থানে। এখনও বুঝতে পারছেন না কোন স্থান? দাদার শহর বেহালা ( Behala ) ।

ঠিকই শুনেছেন, বেহালাতে রয়েছে ডেকার্স লেনের মতোই একাধিক ফাস্টফুডের দোকান। আলিপুর শেষ যেখানে, সেখান থেকেই শুরু হয় বেহালা। তারাতলার রাসবিহারী অটো স্ট্যান্ডের পাশেই দেখতে পাবেন একটি খাবারের দোকান, নাম কৃষ্ণা স্ন্যাকস বার। উত্তর ও দক্ষিণ ভারতের প্রায় সব রকম খাবারই পেয়ে যেতে পারেন সেই দোকানে। সেখানে সবথেকে বেশি জনপ্রিয় গ্রীন মুগ ধোসা। সেখান থেকে ডায়মন্ড হারবার রোডে উঠলেই দেখা যাবে ব্রিজবাসির মিষ্টির দোকান। সেখানেই পরপর পেয়ে যাবেন আর্সালান থেকে শুরু করে বহু ফাস্টফুডের দোকান।

img 20220823 214313

চাইনিজ খেতে ইচ্ছে হলে চলে যেতে পারেন বেহালা থানার উল্টো দিকের ক্যান্টন রেস্তোরায়। পূর্বে এই রেস্তোরা চাইনিজ খাবারের জন্য বেশ জনপ্রিয় ছিল। এরপর যদি বেহালার চোদ্দো নম্বরের দিকে আসেন, তাহলেই পেয়ে যাবেন বেঙ্গল হোটেল। ডেকার্স লেনের চিত্তবাবুর দোকানের মতোই বেঙ্গল হোটেলে পেয়ে যাবেন ফিশ ফ্রাই, ফিশ ফিঙ্গার, চিকেন কাটলেট। যদিও চিকেন কাটলেট এখানে ফাউল কাটলেট নামেই অধিক জনপ্রিয়। বেঙ্গল হোটেলের পাশেই পেয়ে যাবেন একটি ছোট কচুরির দোকান। কিন্তু সেই দোকানের স্পেশাল হিং এর কচুরি আপনার জিভে আনবে জল।

img 20220823 214357

একটু এগিয়ে গেলেই দেখতে পাবেন হাজীর বিরিয়ানি। রাস্তা থেকেই বিরিয়ানির ঘ্রাণে যেন অর্ধেক ভোজন সারা হয়ে যায়। সবই তো খাওয়া হল, তবে বাঙালির শেষ পাতে মিষ্টি না পড়লে যেন ভোজন অসম্পূর্ণ মনে হয়। কিন্তু চিন্তার কোনও কারণ নেই, এখানে অনেক সুস্বাদু মিষ্টান্নও পেয়ে যেতে পারেন। গোপীনাথের মিষ্টির দোকানেই পেয়ে যাবেন ভিন্ন স্বাদের মিষ্টি। এরপর শীলপাড়ার দিকে এলে সেখানে মোড়ে একটি পানের দোকান দেখতে পাবেন। ব্যাস! ভোজন রসিকদের আর কী চাই? একদিন সময় করে বেহালার এই সুস্বাদু খাবার উপভোগ করলে কিন্তু মন্দ হয় না।

google-news-icon

লেটেস্ট খবর