fbpx

Tarun Majumder: ‘এ আমার গুরুদক্ষিণা..’, তরুণ মজুমদারের শেষ ইচ্ছাপূরণ করতে গিয়ে কী বললেন দেবশ্রী?

অনীশ দে, কলকাতা: দাদার কীর্তি (Dadar Kirti), শ্রীমান পৃথ্বীরাজ (Sriman Prithviraj) খ্যাত তরুণ মজুমদার (Tarun Majumder) আকস্মিক সবাইকে ছেড়ে পরলোকে পাড়ি দিয়েছেন গত ৪ঠা জুলাই। পরিচালকের কোনও সন্তান না থাকায় তিনি চেয়েছিলেন তার অন্তেষ্টি করুক তার সন্তানতুল্য তিন অভিনেত্রী, দেবশ্রী রায় (Debashree Roy), মৌসুমি চ্যাটার্জি (Moushumi Chatterjee) এবং মহুয়া রায় চৌধুরী। মহুয়া বর্তমানে নেই। তরুণ মজুমদারের (Tarun Majumder) অন্ত্যেষ্টির কাজ করতে ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন দেবশ্রী রায়। যেমন কথা তেমনই কাজ। অসুস্থ হয়েও নিজের গুরুর শেষ ইচ্ছাপূরণ করলেন দেবশ্রী।

সম্প্রতি সংবাদমাধ্যমকে তিনি জানান, পরিচালককে শেষবারের মত দেখে এসে ঠান্ডা জ্বলে স্নান করেছিলেন দেবশ্রী। আর তাতেই বিপত্তি। জ্বর বাঁধিয়েছেন অভিনেত্রী, এমনটাই জানিয়েছেন তিনি। সঙ্গে সর্দি কাশি। জ্বর গায়েই অন্তিম কাজ সম্পন্ন করেন দেবশ্রী। অভিনেত্রী আগেই জানিয়েছিলেন পরিচালক তার পিতৃস্থানীয় তাই তার শেষ ইচ্ছা দেবশ্রী অবশ্যই পূরণ করবেন। তিনি বলেন, “শুক্রবার আমার বাড়ির কাছের একটি মন্দিরে আমার সিনেমার বাবার পারলৌকিক কাজ করব। এটাই আমার তাঁর প্রতি গুরুদক্ষিণা’’।

debashree 5

দেবশ্রী একলা নন, প্রয়াত পরিচালকের শেষকৃত্য করতে এগিয়ে এসেছেন তার দিদি। তিনিই প্রথম পরলৌকিক কাজ সম্পন্ন করেন তরুণ মজুমদারের। এই অনুষ্ঠানে তিনি দেবশ্রী, সন্ধ্যা রায় এবং শ্রীমান পৃথ্বীরাজ খ্যাত অয়ন মুখোপাধ্যায় নিমন্ত্রিত ছিলেন। কিন্তু দেবশ্রী এইদিন শরীর খারাপ থাকায় উপস্থিত থাকতে পারেননি। যেতে পারেননি সন্ধ্যা রায়ও। এমনকি অয়ন মুখোপাধ্যায় একমাত্র যিনি এইদিন উপস্থিত ছিলেন।

debashree 4

দেবশ্রী নিজের বাড়ির পাশেই পূর্ণদাস রায় রোডের ডাকাত কালী মন্দিরে মজুমদারের পরলৌকিক কাজের আয়োজন করেছেন। এইদিন উপস্থিত ছিলেন পরিচালক অয়ন মুখোপাধ্যায়ও। অভিনেত্রী এই জায়গায় টরুনবাবুর শেষ কাজ করার কারণ হিসেবে জানিয়েছেন, ‘‘বাড়ির পাশের এই মন্দিরে কোনও ভিড় নেই। শান্তিতে বসে পুজোপাঠ করতে পারব। আমরাই ওঁর সন্তান ছিলাম। তাই ওঁর আত্মার শান্তি চেয়ে আমরাই কাজ করব।’’

debashree 2

তরুণ মজুমদারের মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ হয়ে পড়ে গোটা টলিউড ইন্ডাস্ট্রি। প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায় (Prosenjit Chatterjee) থেকে দেব (Dev) সমস্ত তারকারা তার স্মৃতিচারণ করেছেন। শোনা যায় তিনি নাকি খুব প্রচার বিমুখ ছিলেন, এমনকি সাক্ষাৎকার দিতেও খুব একটা পছন্দ করতেন না তিনি। এছাড়াও যে সমস্ত গ্রামে তিনি শুটিংয়ে গিয়েছিলেন সেখানকার মানুষের সাথেও দীর্ঘদিন সম্পর্ক রেখেছেন তরুণ। শুধুমাত্র ইন্ডাস্ট্রির লোকের সাথে না, সাধারন মানুষের সাথেও অনায়াসে মিশে যেতেন এই পরিচালক।

google-news-icon

লেটেস্ট খবর