৩ হাইভোল্টেজ কেন্দ্রে গাড়ি ভাঙচুর থেকে ভুয়ো ভোটার, কেমন কাটল বাঙালির উপনির্বাচনী পর্ব

ফের একবার রাজ্য জুড়ে বেজে উঠেছিল নির্বাচনী কাঁসর। ভবানিপুর উপনির্বাচন, মুর্শিদাবাদে জোড়া লড়াই। নিরপত্তার চাদরে মুড়ে ফেলা হয়েছিল ভোটগ্রহণ কেন্দ্র সহ সংলগ্ন এলাকাকে। ভবানীপুর(Bhawanipur) কেন্দ্রে মোট ৩৫ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে। ভবানীপুরের জন্য ৯টি হেভি রেডিও ফ্লাইং স্কোয়াড থাকছে। ভবানীপুরের সব বুথেই ওয়েব কাস্টিংয়ের ব্যবস্থা থাকছে। প্রতিটি বুথে থাকছে ১৪৪ ধারা। সকাল ৭টা বাজতেই ভবানীপুর সহ তিন কেন্দ্রে বেজে উঠেছিল নির্বাচনের ডামাডোল। নির্বাচনের আগে বাম প্রার্থীর মৃত্যু হওয়ায় আজ মুর্শিদাবাদের জঙ্গিপুর আসনে ভোট হচ্ছে। মুর্শিদাবাদের সামশেরগঞ্জে নির্বাচনের আগে মৃত্যু হয় কংগ্রেস প্রার্থীর। তাই আজ এই কেন্দ্রেও ভোট হচ্ছে।

 

জঙ্গিপুরে ত্রিমুখী লড়াই

 

জঙ্গিপুর বিধানসভা আসনে এবার ছিল ত্রিমুখী লড়াই। তৃণমূলের হয়ে জাকির হোসেন, বিজেপির সুজিত দাস, আরএসপি-এর তরফে আলম মিয়া। এই কেন্দ্রে নিয়োগ করা হয়েছে ১৯ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী। এদিকে মুর্শিদাবাদের সামশেরগঞ্জে আবার চলছিল চতুর্মুখী লড়াই। তৃণমূল তরফে আমিরুল ইসলাম, বিজেপির প্রার্থী মিলন ঘোষ। জইদুর রহমান লড়ছেন কংগ্রেসের হয়ে। সিপিএম প্রার্থী করেছে মোদাসসর হোসেনকে। এই কেন্দ্রেও নিয়োগ করা হয়েছিল প্রায় ১৮ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী।

সময় এগোনোর সাথে সাথেই উত্তপ্ত হতে থাকে রাজ্য রাজনীতি। সকাল ৭.২৬ নাগাদ বিজেপি প্রার্থী প্রিয়াঙ্কা টিব্রেওয়াল ভবানীপুরে ১২৬ নম্বর বুথে জ্যামের অভিযোগ জানান। সঙ্গে সঙ্গেই সেখানে বাড়ানো হয় নিরপত্তা, মোতায়েন করা হয় ১০০ জন ট্র্যাফিক সার্জেন্ট। অপরদিকে সামশেরগঞ্জে তৃণমূল প্রার্থী আমিরুল ইসলাম অভিযোগ তোলেন, গত রাতে কংগ্রেস প্রার্থী জইদুর রহমানের নেতৃত্বে তাঁর বাড়িতে বোমাবাজি চালানো হয়েছে। অবশ্য আমিরুলের অভিযোগকে নস্যাৎ করে দেন জইদুর।

TMC,By poll,BJP,west Bengal,mamata banerjee,priyanka tibrewal,voteতৃণমূল,বিজেপি,ভোট,নির্বাচন,পশ্চিমবঙ্গ,উপনির্বাচন,মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়,প্রিয়াঙ্কা টিব্রেওয়াল

সকাল ৯টা বাজতেই সামশেরগঞ্জে দোগাছি গ্রাম পঞ্চায়েতে ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগ উঠল তৃণমূল প্রার্থী আমিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে। ভোটারদের কাছে গিয়ে জোড়া ফুল ও ‘লক্ষ্মীর ভাণ্ডারে ভোট’ দেওয়ার কথা বলছেন তৃণমূল প্রার্থী, অভিযোগ বিজেপির। তবে এই উত্তপ্ত রাজনীতির মাঝেও মেলে কিছুটা সৌজন্যের ছোঁয়া। ভোটের দিন বুথ পরিদর্শন সেরে বাড়ি ফেরার পথে জঙ্গিপুরের বিজেপি প্রার্থী সুজিত দাসের সঙ্গে তৃণমূল প্রার্থী জাকির হোসেন। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের সঙ্গে হল সৌজন্য বিনিময়। আপনার জন্য আমি আছি, আমার জন্য আপনি আছেন, জানালেন তৃণমূল প্রার্থী। ব্যক্তিগত দ্বন্দ্ব নেই, মন্তব্য বিজেপি প্রার্থীর।

অপরদিকে, বেলা ১১টা বাজতে বাজতে ভবানীপুরে ভোট পড়ে যায় ২২ শতাংশ। এই সময়কালের মধ্যে জঙ্গিপুরে ভোট পড়ে ৩৬ শতাংশ, সামশেরগঞ্জে ৪০ শতাংশ। দুপুর ১২টা ২৩মিনিট, ফিরহাদ হাকিম ও সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে কমিশনে নালিশ জানান্য বিজেপি। এলাকা ঘুরে ভোটারদের প্রভাবিত করার অভিযোগ ওঠে তাঁদের বিরুদ্ধে। তাঁদের নজরবন্দি করে রাখার দাবি তোলে বিজেপি।

TMC,By poll,BJP,west Bengal,mamata banerjee,priyanka tibrewal,voteতৃণমূল,বিজেপি,ভোট,নির্বাচন,পশ্চিমবঙ্গ,উপনির্বাচন,মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়,প্রিয়াঙ্কা টিব্রেওয়াল

দুপুর ১টা, ভবানীপুরে গুরদ্বারে ১৪৪ ধারা লঙ্ঘনের অভিযোগ তুলে পুলিশ কর্মীকে ধমকান বিজেপি প্রার্থী। এরপরই দুপুর গড়াতে গড়াতেই খালসা স্কুলে শুরু হয় বিজেপি-তৃণমূল তুমুল বচসা। তৃণমূলের বিরুদ্ধে ভুয়ো ভোটারের অভিযোগ তোলে বিজেপি। এই সময়কাল পর্যন্ত ভবানীপুরে ভোট দানের হার ৩৬ শতাংশ। অপরদিকে, জঙ্গিপুরে ৫৪ শতাংশ ও সামশেরগঞ্জে ৫৭ শতাংশ। দুপুর ২টো নাগাদ সামশেরগঞ্জে বুথ পরিদর্শনে বেরিয়ে পড়েন জইদুর রহমান। এরপর কিছুক্ষণের মধ্যেই তাঁকে ঘিরে গো ব্যাক স্লোগান দেন তৃণমূল কর্মীরা।

প্রসঙ্গত, আজ এই ভোট উত্তেজনার মধ্যে শোভন চট্টোপাধ্যায়কে জিজ্ঞাসাবাদ করলো সিবিআই। সল্টলেকের সিজিও কমপ্লেক্সে আড়াই ঘণ্টা ধরে চলে এই জিজ্ঞাসাবাদ। এদিন সিবিআই সূত্রে জানা যায়, কলকাতা পুরসভার প্রাক্তন মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়ের কাছে হাজরা মোড়ের উত্তম মঞ্চের হস্তান্তর নিয়ে জানতে চাওয়া হয়। সিবিআইয়ের দাবি, বহুতল করার জন্য উত্তম মঞ্চ লিজ নেয় আইকোর। হস্তান্তরের পর সেটি কলকাতা পুরসভার অধীনে আসে। হস্তান্তর প্রক্রিয়ায় কী ধরনের চুক্তি হয়েছিল, কোনও আর্থিক লেনদেন হয়েছিল কিনা, কার নির্দেশে হস্তান্তর হয়েছিল, তা নিয়ে প্রশ্ন করা শোভন চট্টোপাধ্যায়কে। এদিন শোভন চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে সিবিআই দফতরে যান তাঁর বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়।

দুপুর ৩টা পর্যন্ত ভবানীপুরে ভোট দানের সংখ্যা ৪৮ শতাংশ। অপরদিকে, জঙ্গিপুর ও সামশেরগঞ্জে ৬৮ শতাংশ ও ৭২ শতাংশ। বিকেল ৪.৩০ নাগাদ, মিত্র ইনস্টিটিউশনে ভোট দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়(Mamata Banerjee)। দুপুর ৩টা নাগাদ বাড়ি থেকে বের হন তিনি। এরপর মিত্র ইনস্টিটিউশনে পৌঁছে ভোট দিয়ে ৪ মিনিটের মাথায় সেখান থেকে বেরিয়ে আসেন। এই সময়েই আবার শরৎ বোস রোডে বিজেপি নেতা কল্যাণ চৌবের গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ ওঠে। পদ্মপুকুরে বিজেপি নেতা কল্যাণ চৌবের গাড়িতে হামলার ঘটনা ঘটে বলে অভিযোগ। পদ্মপুকুরে বিজেপি নেতার গাড়ি আটকে ভাঙচুর করা হয় বলে অভিযোগ।

Back to top button