fbpx

Farah Khan: কে যেন দাঁড়িয়ে!’কুচ কুচ হোতা হ্যায়’ শুটিং স্পট দেখতে গিয়ে ভুতের তাড়া খেয়েছিলেন করণ-ফারহা

রাখী পোদ্দার, কলকাতা : বলিউডের ( Bollywood) বিখ্যাত প্রযোজক করণ জোহরের ( Karan Johar) সঙ্গে বিখ্যাত পরিচালক তথা কোরিওগ্রাফার ফারহা খানের ( Farah Khan) বন্ধুত্ব তো কারও অজানা নয়। দীর্ঘদিনের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রয়েছে এই দুজনের মধ্যে। ভারতীয় চলচ্চিত্র জগতে একাধিক হিট সিনেমায় কাজ করেছেন ফারহা খান। তবে আপনি কী জানেন এত সফল হওয়ার পরও একবার শুটিং করতে বিদেশে গিয়ে ভুতের ভয়ে রীতিমতো রাতের ঘুম উড়েছিল ফারহার? হ্যাঁ ঠিকই শুনছেন। আর এই ঘটনা নেটিজেনদের সাথে শেয়ার করে নেন ফারহার ঘনিষ্ঠ বন্ধু খোদ করণ জোহর। এক সাক্ষাৎকার চলাকালীন ফারহা সম্পর্কে এমনই চাঞ্চল্যকর ঘটনা সবার সামনে তুলে ধরেন করণ। তিনি জানান, বিখ্যাত এক সিনেমার শুটিং চলাকালীন ঘটে এই ঘটনা।

শুটিংয়ের প্রস্তুতি চলছিল শাহরুখ, কাজল আর রানী মুখার্জী অভিনীত ‘কুচ কুচ হোতা হ্যায়’ সিনেমার। ছবির শুটিংয়ের জন্য জায়গা দেখতে স্কটল্যান্ডে গিয়েছিলেন ছবির পরিচালক করণ জোহর ( Karan Khan)। সঙ্গে ছিলেন ফারহা খানও। করণের ছবিতে কোরিওগ্রাফার হিসেবে কাজ করেন তিনি। এমনকী এই সিনেমাতে ছোট্টো একটি পার্টে অভিনয় করতেও দেখা যায় তাঁকে। এখান থেকেই শুরু হয় তাঁদের বন্ধুত্বের সম্পর্ক। এক সাক্ষাৎকারে করণ বলেন, যখন তাঁরা ছবির শুটিংয়ের জন্য স্কটল্যান্ডে ( Scotland) ছিলেন তখন হঠাৎ একদিন রাত ১০-১১টা নাগাদ তাঁর ঘরের দরজায় কেউ কড়া নাড়ে। ভয়ে ভয়ে দরজা খুলে করণ দেখেন, মিকি মাউজ আঁকা একটা পাজামা পরে দাঁড়িয়ে আছেন ফারহা।

Farah Khan and Karan Johar
Farah Khan and Karan Johar

ফারহাকে ( Farah Khan) জিজ্ঞাসা করতে সে বলে, ‘আমার ঘরে ভুত আছে, আমি কারও একটা উপস্থিতি স্পষ্ট অনুভব করতে পারছি।’ তারপর নাকি সারারাত করণের রুমেই ঘুমিয়েছিল ফারহা। করণ আরও বলেন, মাঝে মধ্যেই নাকি চারিপাশ ভালো করে দেখছিল ফারহা। আর ফারহার এই অদ্ভুত আচরণে বেশ ভয় পেয়েছিলেন করণ নিজেও।

Farah Khan and Karan Johar
Farah Khan and Karan Johar

ফারহার কোরিওগ্রাফির যাত্রা শুরু হয় ‘জো জিতা উওহি সিকন্দর’ ছবির মাধ্যমে। সেই ছবির একটি গান ‘পেহলা নাশা’তে কোরিওগ্রাফি করার কথা ছিল সারোজ খানের। কিন্তু কোনও কারণ বশত সেই ছবির অংশ হতে পারেননি সারোজ খান। এরপর সেই গানের কোরিওগ্রাফি করার দায়িত্ব পড়ে ফারহার ওপর। এক ফোঁটাও না ঘাবড়ে নিজের যোগ্যতা প্রমাণ করেন ফারহা। এরপর পরিচালক হিসেবে ‘ম্যায় হু না’র মতো ছবি তৈরি করে সেরা পরিচালকদের নিজের নাম খোদাই করে নেন ফারহা। এছাড়াও ‘ওম শান্তি ওম’ সিনেমার মতো ছবিতেও কাজ করে সকলের মন জয় করেন ফারহা। ২০১২ সালে বোমান ইরানির বিপরীতে নায়িকার চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন ‘শিরিন ফারহাদ কি তো নিকল পড়ি’ ছবিতে।

google-news-icon

লেটেস্ট খবর