ব্রেক আপ হয়েছে? এই কারণগুলিই আপনার সম্পর্কের এই পরিণতির জন্য দায়ি

সম্পর্কের ক্ষেত্রে যে কোনও রকম দুর্ব্যবহার সম্পর্ককে টক্সিক করে তোলে। সেই ক্ষেত্রে অনেক সময়ই সেই সম্পর্ক আর বেশিদিন টেকে না। এমন পরিস্থিতি প্রায় এই সমাজের প্রতিটি মানুষের জীবনেই এসে থাকে। এই ধরনের আচরণ সব থেকে বেশি প্রভাব ফেলে আমাদের জীবনের প্রেমের সম্পর্কে। যার ফলাফল ব্রেক আপ।

কিছু অভ্যাস আছে যা আমরা সম্পূর্ণ স্বাভাবিক মনে করি, কিন্তু তা আমাদের জীবনে একটা বিরাট প্রভাব ফেলে থাকে। আর সেই প্রভাব আমরা একদিনে বুঝতেও পারি না। সময়ের সঙ্গে সেই প্রভাবে ক্ষত যেন গভীর হতে থাকে। অবশেষে যার ফলাফল দাঁড়ায় বিচ্ছেদ। আর একটি বিচ্ছেদের নেপথ্যে সব থেকে উল্লেখ্যযোগ্য কারণ হল কিছু টক্সিক আচরণ। যা আমাদের প্রায় প্রতিটি ব্যাক্তির মধ্যেই থেকে থাকে। সেই আচরণগুলি বন্ধের মাধ্যমেই একটা সম্পর্ককে আমরা সুমধুর করে তুলতে পারব।

break up (1)

ভুল-ত্রুটির হিসাব রাখা 

কে সবচেয়ে বেশি ভুল করেছে এই জিনিসটি কখনও একে অপরকে মনে করিয়ে না দেওয়া। একে অপরের ভুলের পরিমাণ নিয়ে না ঝগড়া করা একটি সম্পর্ককে ভাল রাখে। এই অভ্যাসটি খুবই বাজে, যা নিমেষে আপনার সম্পর্কগুলি শেষ করে দিতে পারে। 

সঙ্গীকে দোষারোপ করা 

দিন খারাপ কেটেছে সেই রাগ এসে সঙ্গীর উপর ফেলা। কোনও কিছু ঠিকঠাক করতে পারছে না, তাই নিয়ে বকাবকি করা কখনই সুন্দর সম্পর্কের নজীর হয় না। একটি সুন্দক সম্পর্ক তৈরির জন্য একে অপরের দিকে অভিযোগে আঙুল তোলা বন্ধ করতে হয়। 

খুব  ঈর্ষান্বিত না হওয়া 

আপনার সঙ্গী যখন কারোর সঙ্গে কথা বলে, তখন তার পাশে বসে আপনি যদি চরম ঈর্ষা দেখান তা হলে তা ভাল অভ্যাস নয়। কেউ কেউ এই কাজগুলিকে সত্যিকারের ভালবাসা বা সুন্দর বলে মনে করলেও আদতে তা সত্যি নয়

সমস্যা এড়িয়ে যাওয়া

যখন একটি সম্পর্কের মধ্যে কোনও সমস্যা তৈরি হয়, তখন উপহার দিয়ে সেই ঝামেলা মিটে গেলেও কখনই সেটি নিয়ে নিজেদের মধ্যে বোঝাপড়াকে এড়িয়ে যেতে নেই। পরবর্তীকালে তা ক্ষতিকর প্রমাণিত হতে পারে। 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button