Advertisement

Bismillah: ডিজে কালচারের ছোঁয়ায় মৃত ভারতীয় সংস্কৃতি! এবার ‘বিসমিল্লাহ’র সানাইয়ের সুরেই ফুটবে নতুন আলো

‘শিল্পীর একটাই ধর্ম সাধনা’ বাংলা চলচ্চিত্রের ধারায় রঙ তুলি দিয়ে যেন ছবি আঁকেন শিল্পী কৌশিক গাঙ্গুলী। অবশ্যই তিনি একজন জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত পরিচালক।তবে ভিন্ন ধারার গল্প চয়নের যাদুকর বললেও অত্যুক্তি হয় না। বাংলা সিনেমায় মনি-মুক্তার মতো অমূল্য রত্ন রেখে যান নিজের কাজের মাধ্যমে। জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত পরিচালকের সঙ্গে জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত অভিনেতাকেও তো থাকতে হবে। ঋদ্ধি সেন, বহুমাত্রিক অভিনয়ে যার কোনও বিকল্প নেই। এই মুহূর্তে বাংলা সিনেমার পরিচালকরা অন্তত তাই মনে করেন। অবশ্যই উল্লেখ্য, শুভশ্রী গাঙ্গুলীর কথা। যিনি নায়িকা থেকে ধীরে ধীরে হয়ে উঠছেন প্রকৃত অভিনেত্রী। নগর কীর্তনের জন্য কৌশিক গাঙ্গুলী পেয়েছিলেন জাতীয় পুরস্কার। এবার বাদ্যযন্ত্রের ঝংকার তুললেন ” বিসমিল্লাহ”তে। বিসমিল্লাহর সানাই যে মানুষকে ভাসিয়ে নিয়ে যাবে তা বলাই যায়। ছবির একঝলক সামনে আসতেই দর্শকদের আগ্রহ থেকেই তা স্পষ্ট।

বাঙালি নস্টালজিয়ায় বাঁচে, অথচ যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে ঐতিহ্যের সংরক্ষণ করতে পারছে না। ধীরে ধীরে হারিয়ে যাচ্ছে, পটুয়া শিল্পী, বহুরূপী, পালকি বাহকদের মতো অজস্র পেশা। হারিয়ে যাচ্ছে সংস্কৃতি।ধ্রুপদী গানের ধারা,সানাই,বাঁশি, সারেঙ্গি, সেতারের মতো বাদ্যযন্ত্র আজ মৃতের তালিকায়। কিন্তু যারা আজও গৌরবময় দিনের কথা মনে রেখে শিল্পের সাধনা করে যাচ্ছেন , তাদের সংকটকে পর্দায় তুলে এনেছেন। কৃষ্ণ ও বাঁশি যেন আত্মা ও দেহ। রাধার অভিসার থেকে বিচ্ছেদ কাহিনীর সঙ্গে লিপ্ত হয়ে আছে। কাহিনীটি এক ছন্নছাড়া বাউন্ডুলে ছেলের, মূল চরিত্রে ঋদ্ধি সেন। যার বাবা বিখ্যাত সানাই বাদক। বাবার আদর্শে নিতে যায় তালিম। অথচ যুগের সঙ্গে পেশার খাপ খায় না। সুস্থ ভাবে বাঁচার জন্য চাই রোজগার। এখন বিয়েবাড়িতে নহবত বসে না, বসে ডিজে।সিনেমা জুড়ে আছে প্রলোভন, দ্বন্দ্ব,প্রেম, বিরহ, মৃত্যু আর সবশেষে একজন শিল্পীর অস্তিত্বের জন্য সংগ্রাম ও ত্যাগ।

ঋদ্ধি, শুভশ্রী, গৌরব, সুরঙ্গনার অসাধারণ অভিনয় কাহিনী থেকে চোখ সরাতে দেবে না। তারকাদের চাঁদের হাট,স্বয়ং কৌশিক গাঙ্গুলী একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করছেন। আরও থাকছে অরিজিৎের সুরেলা কন্ঠ যা মুহূর্তে ভাসিয়ে নিয়ে যেতে পারে মানুষকে।আগামী ১৯ আগস্ট সিনেমাহলে মুক্তি পাবে বিসমিল্লাহ। সিনে-প্রেমী মানুষের মনের মণিকোঠায় নিশ্চয় স্থান করে নিতে পারবে এই সিনেমা।



Follow us on


Advertisement
Back to top button
Advertisement
Advertisement