fbpx

Madhabilata: প্রথম দেখাতেই মাধবী’তে মন সবুজের, জঙ্গল ভুলে এবার কি শহরে পা দেবে মাধবীলতা?

কলকাতা: সিরিয়ালপ্রেমীরা যখন মিঠাই–খড়িকে (Mithai and Gaatchora) নিয়ে ব্যস্ত  তারই মাঝে টলিপাড়ায় (Tollywood) একটি হিন্দোল তুলেছে মাধবীলতা। শাশুড়ি-বৌমার ঝগড়া কিংবা সংসারের কুটকাচালি নয়, পরিবেশ বাঁচানোর লড়াইকে প্রাধান্য দিয়ে মানুষের কাছে পৌঁছে গিয়েছে এই ধারাবাহিক (Bengali Serial)। ছোটপর্দায় এই প্রথমবারের মতো দেখা গিয়েছে, সবুজ বাঁচানোর লড়াই। মাধবীলতা (Madhabilata) এমন একটি চরিত্র যার মায়া-মমতার সঙ্গে সমান তালে পাল্লা দিয়েছে রাগ ও লড়াই করার ক্ষমতা। হাতে ধারাল অস্ত্র নিয়ে জঙ্গল বাঁচানোর এই যুদ্ধে তাঁর পাশে আছে সবুজ। সে ভালোবাসে ছবি তুলতে, প্রকৃতির সঙ্গে মিশে থাকতে। বন, পাহাড়, জঙ্গল এই সবের মাঝেই কোথাও নিজেকে খুঁজে পায় সবুজ। 

জঙ্গলহাটার জঙ্গলেই প্রথম দেখা তাঁদের। প্রথম দেখাতেই আধুনিক শহুরে ছেলে ‘সবুজ’ প্রেমে পড়ে জঙ্গলমহলের প্রাণোচ্ছল মাধবীর। এবং দিয়ে দেয় বিয়ের প্রস্তাব। কিন্তু মাধবী জানে তাঁর জীবনের একমাত্র লক্ষ্য প্রকৃতির প্রাণ রক্ষা করা। তাই সে সবুজ’কে শর্ত দেয় যে সে যদি এই জঙ্গলের চোরাচালান বন্ধ করতে পারে তা হলে মাধবী খুশি খুশি তাঁকে বিয়ে করতে রাজি।  

madhabilata1

অন্যদিকে, পুষ্পরঞ্জন চৌধুরী অর্থাৎ সবুজের বাবা সবার আড়ালে চালাচ্ছেন এই চোরা কারবার। জঙ্গলের গাছ কেটে তার কাঠ বিক্রি করছে চোরাবাজারে। মাধবীলতা তার কাজে বাঁধা সৃষ্টি করছে বারংবার। তাই সে চায় মাধবীলতাকে তাঁর রাস্তা থেকে সরাতে। পুষ্পরঞ্জন চৌধুরী তাঁর ছেলেকে বলে যেভাবেই হোক মাধবীলতাকে বিয়ে করে কলকাতায় আনতে, যাতে সে আর কোনদিনও পুষ্পরঞ্জন চৌধুরীর কাজে বাঁধা সৃষ্টি না করতে পারে।

একদিকে, নিজের ভালোবাসা এবং অন্যদিকে পিতার আদেশ সবুজ দুটোকেই সমান নিষ্ঠাসহকারে পালন করবে বলে সিদ্ধান্ত নেয়। আগামী পর্ব গুলিতে সবুজ ও মাধবীর বিয়ে দেখা যাবে। দেখা যাবে মাধবী যার প্রাণকেন্দ্রই হল প্রকৃতি, সে জঙ্গল ছেড়ে বহু দূরে চলে যাচ্ছে শহর কলকাতায়। এমন এক জায়গা যেখানে নেই কোনও জঙ্গল, নেই কোন পাহাড়। নেই ঝরনার শব্দ। নেই পাখির ডাক। কেমন হবে মাধবির এই নতুন পথচলা? মাধবী কি সবুজকে পাবে তার পাশে নাকি ভেঙ্গে যাবে সমস্ত বিশ্বাস?

google-news-icon

লেটেস্ট খবর