fbpx

মন কষাকষি ভুলে দর্শকের ইচ্ছেতেই পর্দায় কামব্যাক দাদু-ঠাম্মির! ফের কোথায় দেখা যাবে এই জনপ্রিয় জুটিকে?

জয়িতা চৌধুরি, কলকাতাঃ সিরিয়াল প্রেমীদের দাবী মেনে আবার পর্দায়ে জুটি বাধতে চলেছেন ফল্গুনী-মানসী। জি বাংলার ( Zee Bangla ) ‘আমাদের এই পথ যদি না শেষ হয়’ (Ei Poth Jodi Na Sesh Hoy ) টিআরপি তালিকায় সেরা দশে প্রতি সপ্তাহে নিজের জায়গা করতে না পারলেও, ঘর করে নিয়েছে দর্শক মনে। মধ্যবিত্ত পরিবারের গল্পকে ভরে ভরে ভালোবাসা দিচ্ছে দর্শক। তবে সম্প্রীতি এই ‘পারফেক্ট’ পরিবারের উপরই মারাত্মক অভিযোগ তুলেছিলেন সাত্যকির ছোটদাদু, অর্থাৎ ফাল্গুনী চট্টোপাধ্যায় ( Phalguni Chatterjee )।

বেশ কয়েকমাস ধরেই ধারাবাহিকে দেখা মিলছিল না ছোটদাদু আর ছোটঠাম্মি মানসী সিনহা। সে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকে নানা ম্যাসেজও করছিল তা নিয়ে। এবার প্রকাশ্যেই সেইসবের জবাব দিলেন। ফেসবুকে ( Facebook ) একটি পোস্টের কমেন্ট বক্সে এই ব্যপারে জিজ্ঞাসা করা হলে ফল্গুনীবাবু জানান, বিগত আড়াই মাস ধরে এই প্রশ্নের উত্তর না পেয়ে আমিও অন্ধকারে। আমি তো ভেবেই পাইনা, প্রায় প্রতিদিন উপস্থিতির পর আদর্শ যৌথ পরিবার ‘সরকার বাড়ি’র দুটো গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র কী করে কোনো কারণ না দেখিয়ে ভ্যানিশ হয়ে যেতে পারে? গল্পের বিশ্বাসযোগ্যতা কি তাতে মজবুত হয়? আমি জানিনা, সত্যিই জানিনা ভাই।’’

ei poth jodi na sesh hoy 1

অবশ্য কানাঘুষোয় অভিযোগের তির উঠছে ধারাবাহিকের প্রযোজনা সংস্থার বিরুদ্ধেও। শোনা যাচ্ছে ঠিক সময়ে শিল্পীদের পারিশ্রমিক মেটান না সেই প্রযোজক সংস্থা। ধারাবাহিকের একজনের নাকি এক লক্ষ টাকা বাকি। আর তার জেরেই সিরিয়াল থেকে বাদ দেওয়ার ঘটনাগুলি ঘটছে। এই প্রসঙ্গে ছোট ঠাম্মি মানসি সিনহা জানাচ্ছেন, “সিরিয়ালের শুটিং থেকে বিরতি নিয়ে অংশুমান প্রত্যুষের তিনটি ছবির শুটিংয়ের জন্য লন্ডন চলে যাই। ফিরে ছবি পরিচালনার কাজে ব্যস্ত হয়ে পড়ি। আমার চরিত্রটি না থাকার কারণেই হয়তো ছোটদাদুর চরিত্রটিও বাদ রাখা হয়েছিল। আমার সঙ্গে পারিশ্রমিক নিয়ে কোনও সমস্যা হয়নি।“

ei poth jodi na sesh hoy 3

 

তিনি আরও বলেন, “যাদের সঙ্গে হয়েছে, সেই সব শিল্পীদের পাশে আছি, আবার প্রযোজনা সংস্থার পাশেও রয়েছি। একই প্রশ্নের উত্তরে ছোট দাদু বললেন, “পুরো ঘটনাটি সম্পর্কে অন্ধকারে রাখা হয়েছিল আমাকে। এখন জানতে পেরে অন্ধকার কেটে গিয়েছে। খুশি মনেই ফিরছি।” এই অভিযোগ উরিয়ে দিয়ে পরিচালক ও প্রযোজক স্বর্ণেন্দু সমাদ্দার বলেন, “দুজন শিল্পীর সঙ্গে সময় নিয়ে সমস্যা হচ্ছিল বলে সিরিয়াল থেকে বাদ পড়েছিলেন। তাঁরা তো পারিশ্রমিক নিয়ে কোনো অভিযোগ করেননি।

ei poth jodi na sesh hoy

তিনি আরও বলেন, “এখন ধারাবাহিকের গল্পের মোড় ঘুরে গিয়েছে। গল্পের প্রয়োজনে ওরা আবার ফিরছেন।” আপাতত ফাল্গুনীকে দেখা যাচ্ছে ‘ধুলোকণা’ ধারাবাহিকে। তবে ছোটদাদুর চরিত্রটা এমনিতে খুব ভালোবাসা পেত দর্শকদের কাছে। বিশেষ করে বাড়ির বউ ঊর্মির সঙ্গে দাদুর ইকুয়েশনটা খুব মিস করছেন তাঁরা। প্রসঙ্গত, গত সপ্তাহে ধারাবাহিকের টিআরপি রেটিংয়ে এই ধারাবাহিক এক লাফে অনেকটা উপরে উঠে এসেছে? ৫.৫ থেকে একেবারে ৫.৯ নম্বর পেয়ে বসল ‘আমাদের এই পথ যদি না শেষ হয়’।

google-news-icon

লেটেস্ট খবর