fbpx

Netaji Subhas Chandra Bose: উচ্চতায় ২৮ ফুট, হলোগ্রাম নয়! ইন্ডিয়া গেটে বসল নেতাজির গ্রানাইট মূর্তি, আজই হবে উদ্বোধন

ভারতের ইতিহাসে নতুন পালক, ইন্ডিয়া গেটে উম্মোচন হতে চলেছে ২৮ ফুট উচ্চতা সম্পন্ন নেতাজির গ্রানাইট মূর্তি

মন্টি শীল, কলকাতা: চলতি বছরের ২৩শে জানুয়ারি ছিল ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামের বীর সৈনিক নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসু’র (Netaji Subhas Chandra Bose) ১২৫ তম জন্মবার্ষিকী। আর সেই উপলক্ষ্যে নয়া দিল্লিতে অবস্থিত ইন্ডিয়া গেট’এ ( India Gate ) বীর যোদ্ধা নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু’র (Netaji Subhas Chandra Bose) একটি বিশালকার মূর্তি স্থাপনের কর্মসূচি গ্রহণ করেছিল ভারত সরকার। যদিও সেই সময় বীর যোদ্ধার মূর্তির উম্মোচন না হলেও নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু’র একটি হলোগ্রাম মূর্তি উম্মোচন করা হয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে।

কিন্তু সূত্র অনুযায়ী জানা গিয়েছে, সরকার দ্বারা প্রতিষ্ঠিত বীর যোদ্ধার সেই হলোগ্রাম সরিয়ে দিয়ে স্থাপিত হতে চলেছে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু’র গ্রানাইট দ্বারা নির্মিত মূর্তি। যার উচ্চতা আনুমানিক ২৮ ফুট এবং চওড়ায় প্রায় ৬ ফুট। যা শোনার পর অনেকেই মনে করছেন, ‘ভারত বদলে গিয়েছে’। আবার অনেকেই মন্তব্য করেছেন, ভারতবর্ষ তথা ইন্ডিয়া গেটের ইতিহাসে যোগ হতে চলেছে এক নতুন অধ্যায়। সূত্র অনুযায়ী, আজ অর্থাৎ ৮ই সেপ্টেম্বর স্বাধীনতার অন্যতম মহানায়ক নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু’র (Netaji Subhas Chandra Bose) এই বিশালাকার মূর্তিটির উম্মোচন করতে চলেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী ( Narendra Modi )।

8c23

সরকারী সূত্র অনুযায়ী জানা গিয়েছে, গ্রানাইট দ্বারা নির্মিত নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু’র এই বিশালাকার মূর্তিটির ওজন প্রায় ২৮০ মেট্রিক টন। যেটা খোদাই করতে প্রতি ঘন্টায় ২৬,০০০ জন শ্রমিকের প্রয়োজন হয়েছিল। জানা গিয়েছে, এই নেতাজি মূর্তিটির প্রস্তুতকার্যে ভাস্কর্যদের নেতৃত্ব দিয়েছেন প্রখ্যাত ভাস্কর শিল্পী অরুণ যোগীরাজ। যা ভারতের ইতিহাসে সবচেয়ে লম্বা, বাস্তবসম্মত একশিলা গ্রানাইট এবং হস্তনির্মিত ভাস্কর্য গুলির মধ্যে একটি। সূত্র অনুযায়ী, গত ২৩ শে জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু’র হলোগ্রাম উম্মোচন করেছিলেন, ঠিক সেই স্থানেই স্থাপিত হয়েছে এই বিশালাকার মূর্তিটি।

বলে রাখা ভাল, নয়াদিল্লির একেবারে অলিন্দে অবস্থিত রয়েছে ইন্ডিয়া গেট। যার মোট উচ্চতা প্রায় ৪২ ফুট। এখানে ৭০,০০০ জনেরও বেশি ভারাতের বীর যোদ্ধাদের নাম খোদাই করা রয়েছে যারা প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময় নিজেদের প্রাণ বলিদান দিয়েছিলেন। ভারতের স্বাধীনতা জাতীয় স্মৃতি স্তম্ভ হিসেবে পরিচিত এই ইন্ডিয়া গেট প্রথমে কিংসওয়ে নামে নামাঙ্কিত ছিল। যার নকশা নির্মাণ করেছিলেন স্যার এডওয়ার্ড লুটিয়েন্স এবং এই স্থাপত্যটি নির্মাণ করা হয়েছিল ১৯৩১ সালে। লাল হলুদ বেলেপাথর দিয়ে নির্মিত ভারতবর্ষের এই স্থাপত্যটি অত্যন্ত গৌরবময় হলেও, নেতাজির মূর্তি উম্মোচনের পর সেই গৌরব আরও কয়েক গুণ বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করছেন অনেকেই।

google-news-icon

লেটেস্ট খবর