fbpx

Rupankar Bagchi: “কেকে বিতর্কে পাশে পাইনি”, রাঘব, ইমনের প্রতি ক্ষোভ উগরে দিলেন রূপঙ্কর

কেকে বিতর্কে ফের জল্পনার মেঘ! জেনে নিন বিশদে

 

জয়ীতা সাহা, কলকাতা: জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী কেকে ওরফে কৃষ্ণকুমার কুন্নাথ-র মৃত্যুর পর কেটে গিয়েছে পাঁচটা মাস। তবুও যেন কিছুতেই থামছেনা কেকে বিতর্ক। কোনও শিল্পী তাঁর প্রতীভা যেমনই হোক না কেন তাঁকে তাঁর প্রতিভার বিরুদ্ধে আঘাত করা উচিত নয়, শিল্পীদের জীবনের এই মুল সত্যকে উপেক্ষা করে কেকে বিতর্কে জড়িয়েছিলেন সংগীত শিল্পী রূপঙ্কর বাগচী। তাঁর মৃত্যুর পরেই কেকের অনুগামীদের আঘাত করেন তিনি। যে কারণে মিও আমরির ব্র্যান্ড গানটির কন্ঠে রূপঙ্কর বাগচী-র দেওয়া কন্ঠও বাদ দেওয়া হয়।

” কেকে বিতর্কে পাশে পাইনি” , এমনই বক্তব্য প্রকাশ্যে এনে আবারও বিতর্ক উষ্কে দিয়েছেন রূপঙ্কর বাগচী। কেকে বিতর্কে বেশ কিছু মানুষ রূপঙ্কর বাগচী-র পাশে ছিলেন। আবার কেউবা ছিলেন তাঁর বিরুদ্ধে। সম্প্রতি একটি সংবাদমাধ্যমের সাক্ষাৎকারে রূপঙ্কর জানিয়েছেন,” ইমন চক্রবর্তী, রাঘব চট্টোপাধ্যায় আমার বক্তব্যের বিরুদ্ধে ছিলেন। আবার রূপম ইসলাম, নচিকেতার মতো শিল্পীরা পাশে ছিলেন।” এই বিতর্কের ফলে সোশ্যাল মিডিয়ায় কার্যত ঝড় ওঠে। আর এসবের মধ্যেই বেশ কিছু কেকে অনুগামী রূপঙ্কর বাগচী-কে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ থেকে তাঁর পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে অকথ্য ভাষা ব্যবহার করেন।img 20220911 174608এই সব কটুক্তি-র বিরোধীতা করেছিলেন অণির্বান ভট্টাচার্য, পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়। কেকে বিতর্কের জেরে রূপঙ্কর বাগচী-র মাকে “ধর্ষন করা হোক”, এমন মন্তব্য করেছেন সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশ কিছু অনুগামী। কেকে প্রসঙ্গে তিনি রূপঙ্কের সঙ্গে একমত নন এমনই একটি মন্তব্য সেই সময় সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছিলেন রাঘব চট্টোপাধ্যায়। এবার সে প্রসঙ্গেই নতুন বিতর্ক উষ্কে দিয়ে রূপঙ্কর জানিয়েছেন,” ওঁর কাছ থেকে ওই পোস্টটা এক্সপেকটেড। কারণ আমার প্রতি রাগটা ওঁ লুকোতে টুকোতে পারেনি, অনেক জায়গাতেই সূটা প্রকাশ করে ফেলেছে।” এ প্রসঙ্গে শিল্পী রাঘব চট্টোপাধ্যায়ের পাল্টা বক্তব্য,” ব্যক্তিগত ভাবে আমার কারও প্রতিই কোনও রাগ নেই। ওঁ যেটা বলেছিল ( কেকে প্রসঙ্গে ) সেটা আমি সমর্থণ করিনি।এখানে কোনও রাগ, দুঃখের বিষয় নেই। আমরা খুব ভালো বন্ধু।”img 20220911 174844কেকে বিতর্ক প্রসঙ্গে সংগীত ইমন-কে নিয়েও বলতে পিছুপা হননি রূপঙ্কর। তাঁর বক্তব্য,” ইমন লড়াকু, জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছে, তবুও ওঁ খুব ইনসিকিওরড। যদিও এই প্রফেশনে আমরা সকলেই কমবেশি ইনসিকিওরড তবে ইমন বোধহয় একটু বেশিই ভয় পেয়েছিলেন। তাই ফেসবুক লাইভ করেছিলেন। ভেবেছিলাম জিজ্ঞাসা করব বলব ফেসবুক লাইভ না করলেই পারতেন।” কেকে বিতর্কে কাকে তিনি পাশে পেয়েছেন আর কাকে পাননি তা প্রায় সকলেরই নাম ধরে ধরে উল্লেখ করেন রূপঙ্কর। এই বিতর্ক কি জল্পনা বাড়াবে? এসব প্রশ্ন বর্তমানে ঘুরছে অনুগামীদের মনে।

google-news-icon

লেটেস্ট খবর