fbpx

Sana Arisa: মুখে দিলে ভক্তির ছোঁয়া! বাড়িতেই বানিয়ে নিন পুরীর জগন্নাথ দেবের সুস্বাদু এই মহাভোগ

সপ্তাহ আগেই মাসির বাড়ি গিয়েছিলেন জগন্নাথ, বলরাম ও সুভদ্রা। আপাতত ফেরার পালা। আর সেই ফেরাকেই কেন্দ্র করে দেশ জুড়ে আজ উল্টো রথের আনন্দ। সপ্তাহান্তে ফের ‘জয় জগন্নাথ’ সুরে মেতে উঠবে গোটা দেশ। একাধিক ভোগ সহযোগে  জগন্নাথের পুজোয় মাতোয়ারা হবেন ভক্তগণরা। চলবে পুজো-আচ্চা। ফুলের সমাহারে সাজিয়ে রথে চড়িয়ে মাসির বাড়ি থেকে আনা হবে জগন্নাথ দেবকে। 

জানা যায়, প্রসাদ হিসেবে এই দিন দেওয়া হয় ৫৬ রকমের ভোগ। নানা রকমারি খাদ্যের সমাহার দেখা যায় এই প্রসাদে। উকখুড়া, নাড়িয়া কোড়া, সানা আরিশা, মেন্ধা মুন্ডিয়া-সহ বিভিন্ন খাবার থাকে এই ভোগের মধ্যে। যার মধ্যে সানা আরিশা ভোগ চিরকালই ভক্তদের  মন ছুঁয়ে যায়। বলা হয়, এই মহাভোগের স্বাদ যেন অমৃতর মতো। আপনিও চান নাকি এই মহাভোগের স্বাদ নিতে। পুরী কিংবা মাহেশ যাওয়ার সুবিধা নেই? তাতে বিশেষ চিন্তার কিছু নেই। বাড়িতেই বানিয়ে নিন সানা আরিশা বা জগন্নাথ দেবের মহাভোগ। 

sana arisa

এই পদটি বানানো খুবই সহজ। এই পদের মূল উপকরণগুলি হল, দুধ-২ কাপ, কনডেন্স মিল্ক- ১/২ , জাসমিন চাল-১ কাপ, ফ্রেশ ক্রিম-১/২ কাপ , সাদা মিহি চিনি-১/২ কাপ, এলাচগুঁড়ো-এক চামচ। উপকরণের পরিমাণ এতই কম যে নিমিষেই বানিয়ে ফেলতে পারবেন এই মহাভোগ। উপকরণ জোগাড়ের কাজ শেষ? আসুন তবে জেনে নিন এই সানা আরিশা বানানোর পদ্ধতি।

  • প্রথমে চাল টিকে ভালো করে ধুয়ে ২-৩ ঘন্টা ভিজিয়ে রাখতে হবে। এবং দুধ টিকে ফুটিয়ে নিতে হবে। 
  • দুধের মধ্যে চালটিকে দিয়ে দিতে হবে। এরপর দুধ ও চাল ফুটে মাখা-মাখা হয়ে যাওয়ার পর সেটিকে ঠান্ডা করে নিন। 
  • পাশাপাশি, অন্য একটি পাত্রে কনডেন্স মিল্ক ও চিনির মিশ্রণ ভালো করে ফেটিয়ে নিন। এরপর চাল সমেত দুধ, কনডেন্স মিল্ক, চিনির মিশ্রণের সঙ্গে ফ্রেস ক্রিম ও এলাচগুঁড়ো  দিয়ে ভালো করে মিশিয়ে নিন। তারপর ছোট ছোট আকারে গড়ে নিয়ে ডিপ ফ্রাই করলেই তৈরি সানা আরিশা।

google-news-icon

লেটেস্ট খবর