fbpx

World’s Longest Bus Route: ছয়ের দশকে এক ‘বাসে’ই সাত সমুদ্র, তেরো নদী পার! কেমন কলকাতা টু লন্ডনের এই যাত্রা?

প্রায় আট হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে ওই সাত সমুদ্র, তেরো নদীর পাড়ের দেশে পৌঁছে যেত এই বাস। নাম তার অ্যালবার্ট।

“এস প্ল্যানেড, চিড়িয়াখানা, সল্টলেক……….” হাওড়া স্টেশন (Howrah Station) চত্বর থেকে বেরিয়ে পড়তেই এই প্রকার একটা চিৎকার রোজকার যাত্রীদের যেন সঙ্গী হয়ে যায়। বাসে ওঠার তাড়াহুড়োয় ছুটতে থাকে নিত্যযাত্রীরাও (Daily Passenger)। শুধুই হাওড়া নয়, শহরের অধিকাংশ বাস স্টপেই (Bus Stop) খানিকটা এমন পরিবেশ একটা অতিসাধারণ ব্যাপার। কনডাকটরদের এমন চিল চিৎকার প্রায় প্রতিদিনই কানে তালা ধরায় সাধারণ মানুষের। কিন্তু ভেবে দেখুন, এই বাসগুলির মধ্যেই খানিকটা অন্যরকম সজ্জার একটি বাস থেকে ডাক লন্ডন (London) যাওয়ার। না মোটেই রূপকথা নয় এটা। কারণ, এই ডাকটাই আপনাকে নিমিষে ভাসিয়ে নিয়ে ছয়ের দশকে। 

তিলোত্তমায় ব্রিটিশদের রমরমা। এক বাসেই কলকাতা থেকে লন্ডন (Kolkata to London) চলছেন শহরের ভিনদেশি সাদা চামড়ার মানুষরা। প্রায় আট হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দিয়ে ওই সাত সমুদ্র, তেরো নদীর পাড়ের  দেশে পৌঁছে যেত এই বাস। নাম তার অ্যালবার্ট। ডবল ডেকার বাস, বিলাসিতা ভরপুর। কিছুরই যেন অভাব নেই। তৎকালীন যুগের একেবারে চলন্ত হোটেল। যা আজও মানুষের কাছে আশ্চর্য। অবশ্য, ইতিহাসের পাতা খুঁড়ে মানুষের কাছে মাঝে মধ্যেই উঁকি দিয়ে দিত অ্যালবার্ট। কিন্তু, অনেকের কাছে বিশেষ তথ্য প্রমাণ না থাকায় অ্যালবার্টের (Albert Bus) অস্তিত্ব নিয়ে অনেকটাই ধন্দ ছিল সকলের মনে। 

kolkata to london1

তবে এবার যেন সেই সকল ধন্দের সমাপ্তি ঘটল নেটমাধ্যমের হাত ধরেই। সম্প্রতি, সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে ভাইরাল হওয়া একটি ছবিতে দেখা গিয়েছে, বাস থেকে কিছু যাত্রী ওঠা-নামা করছেন। এমনকী গন্তব্যের স্থানে সেই বাসে লেখা রয়েছে, লন্ডন-ক্যালকাটা-লন্ডন। চক্ষু চড়কগাছে উঠে যাওয়া এই ছবি দেখে বেশ হতবাক নেটিজেনরা।

kolkata to london2

জানা গিয়েছে, ইংল্যান্ড, বেলজিয়াম, পশ্চিম জার্মানি, অস্ট্রিয়া, যুগোস্লাভিয়া, বুলগেরিয়া, তুরস্ক, ইরান, আফগানিস্তান, পশ্চিম পাকিস্তান হয়ে ভারতে ফিরে আসত অ্যালবার্ট। এরপর তৎকালীন  বাংলা রেঙ্গুন হয়ে থাইল্যান্ড ও তৎকালীন মালয়, সিঙ্গাপুর হয়ে পৌঁছে যেত অস্ট্রেলিয়া। প্রায় ১৫ বার কলকাতা থেকে লন্ডন সফর করেছিল ওই বাসটি। এক সময় টাইটেনিককে বলা হত ‘স্বপ্নের জাহাজ’। অন্যদিকে, অ্যালবার্টও নিজের জৌলসে কিছু কম ছিল না। জানা যায়, খাওয়া থেকে শোয়া সমস্ত রকমের বিলাসিতার সুবিধা ছিল এই বাসে। দেশের পর দেশ ঘুরতে ঘুরতে লন্ডনে পৌঁছে যেত অ্যালবার্ট যেই দৃশ্য হয় তো স্বর্গের থেকে কম নয়। তৎকালীন সময়ে লন্ডন থেকে কলকাতা আসার জন্য সাত হাজার ৮৮৯ টাকা খরচ হত প্রত্যেক যাত্রীদের।

google-news-icon

লেটেস্ট খবর